এ.পি.জে আব্দুল কালামের জীবনী | APJ Abdul Kalam Biography in Bengali

APJ Abdul Kalam Biography in Bengali

এ. পি. জে. আব্দুল কালাম ছিলেন একজন সফল ভারতীয় মহাকাশ বিজ্ঞানী ও রাজনীতিবিদ তিনি ভারতের ১১ তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন এবং ২০০২ সাল থেকে ২০০৭ পর্যন্ত তিনি ভারতীয় রাষ্ট্রপতির পদ অলংকৃত করেছেন।

তার জীবনের পথচলা ও সাফল্যের কাছে পৌঁছানোর জন্য তাকে অধ্যাবসায় এর সাথে প্রচুর পরিশ্রম করে যেতে হয়েছে। তামিলনাড়ুর রামেশ্বরম এ বেড়ে ওঠা ডক্টর এ. পি. জে. আব্দুল কালামের জীবনের থেকে আপনি পেতে পারেন আপনার জীবনের এগিয়েচলার ও সাফল্যের অনেক প্রেরণা।

এ. পি. জে. আব্দুল কালাম সম্পর্কে তথ্য – A P J Abdul Kalam Information in Bengali

নাম ( Name ) আবুল পাকির জয়নুলআবেদিন আব্দুল কালাম
জন্ম (Birthday) ১৫ অক্টোবর ১৯৩১
জন্মস্থান ( BirthPlace ) রামেশ্বরম, তামিলনাড়ু
মাতা ( Mother Name ) আশিয়াম্মা জয়নুলআবেদিন
পিতা (Father Name ) জয়নুলআবেদিন মারাকায়ার

তার পিতার একটি নৌকা ছিল তিনি হিন্দু তীর্থযাত্রীদের রামেশ্বরম থেকে ধনুশ্কাদি নিয়ে যেতেন ও ধনুশ্কাদি থেকে আবার রামেশ্বরম নিয়ে আসতেন এটাই ছিল তার পিতার জীবন জীবিকা। তার মা আশিয়াম্মা ছিলেন একজন গৃহিনী।

পরিবারে আব্দুল কালামের তিন বড় ভাই ও এক বোন ছিল তার মা আশিয়াম্মা ছিলেন একজন গৃহিনী তিনি তার বড় ভাইদের খুবই কাছের ছিলেন তিনি তার বড়োভাইকে প্রতিমাসে কিছু টাকা পাঠাতেন সারাজীবন।

সম্মান পুরস্কার – APJ Abdul Kalam Biography Awards

সাল ১৯৮১: পদ্মভূষণ, পুরস্কার – গভর্নমেন্ট অফ ইন্ডিয়া
সাল ১৯৯০: পদ্মবিভূষণ, পুরস্কার – গভর্নমেন্ট অফ ইন্ডিয়া
সাল ১৯৯৭: ভারত রত্ন, পুরস্কার – গভর্নমেন্ট অফ ইন্ডিয়া
সাল ১৯৯৭: ইন্দিরা গান্ধী অ্যাওয়ার্ড ফর ন্যাশনাল ইন্টিগ্রেশন – গভর্নমেন্ট অফ ইন্ডিয়া
সাল ১৯৯৮: বীর সভাকর অ্যাওয়ার্ড – গভর্নমেন্ট অফ ইন্ডিয়া
সাল ২০০০: শাস্ত্র রামানুজন প্রাইজ – শানমুগা আর্টস, বিজ্ঞান, প্রযুক্তি ও গবেষণা একাডেমী
সাল ২০১৩: ভন ব্রাউন অ্যাওয়ার্ড – ন্যাশনাল স্পেস সোসাইটি

APJ Abdul Kalam Death

মহান ব্যাক্তিত্ব ডক্টর এ পি জে আব্দুল কালাম স্যারের মৃত্যু হয় 25 Julay 2015 সালে উত্তর পূর্ব ভারতের রাজ্য মেঘালয়ার রাজধানী শিলং শহরে।

মৃত্যুর পূর্বমুহুর্ত পর্যন্ত তিনি শিলংয়ের একটি কলেজে তার আমন্ত্রিত বক্তব্য রাখছিলেন তার বক্তিতা চলার কিছু সময় পরেই তিনি কথা বলতে বলতে স্টেজে বসে পড়েন। হসপিটালে নেয়া হলে রিদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে তার মৃত্যু হয়।
জীবনের শেষ মূহর্ত পর্যন্ত তিনি তার জ্ঞান ছাত্রদের মাঝে শেয়ার করে গেছেন, তারথেকে বড় মাপের বিজ্ঞানী ভারতবর্ষে হয়তো খুব কমই জন্মেছে।

আরও পড়ুন: হাজী মুহাম্মদ মহসিনের জীবনী

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here