vasco da gama history in bengali | জলপথে পর্তুগিজদের ভারত আবিষ্কার

vasco da gama history in bengali

ভাস্কো দা গামা পর্তুগালের বিখ্যাত বাণিজ্যিক কাপ্তান যিনি জলপথে প্রথম ইউরোপ থেকে ভারতে আসার পথ আবিষ্কার করেন এবং প্রথম ভারতে ইউরোপিয়ান পর্তুগীজ সাম্রাজ্য স্থাপনা করেন।

8 Julay 1497 সালে চারটি সামুদ্রিক জাহাজে ১৭০ জন মানুষ নিয়ে পর্তুগালের সমুদ্রতট থেকে সমুদ্র পথে ভারত দেশ খোজার উদ্দেশ্যে রওনা করেন আর এই খোঁজার নেতৃত্বে ছিলেন ভাস্কো দা গামা

সমুদ্র পথে দশ মাস চলার পরে, 20 MAY 1498 সালে Vasco da Gama ভারতের কেরালা রাজ্যের কালিকট নামক স্থানে আগমন করেন। মালিয়ালাম ভাষায় কোজিকোর ও বলা হয়।

পর্তুগিজ নাবিন ভাস্কো দা গামার পর্তুগালের থেকে ভারতে আগমন, ব্যাবসায়িক সম্পর্ক বিস্তার এবং যাত্রাপথে তার আরো বিভিন্ন দেশে সাম্রাজ্য স্থাপনা ও বাণিজ্যিক বিকাশের সফল বিভিন্ন ঘটনা আপনাদের জন্য রইলো।

vasco da gama history in bengali

Vasco da Gama history – ভারত আবিষ্কারের কারণ

সেই সময়কালে সমগ্র ইউরোপে ভারতের মশালা খুবই জনপ্রিয়তা ছিলো, আর ভারত থেকে এই মশালা সিল্ক রুট হয়ে ইউরোপে পৌঁছতো। এই রাস্তা ভয়ংকর রকমের শুরু দীর্ঘ এবং সময় স্বাপেক্ষ ছিলো।

তাছাড়া এই সিল্ক রাস্তায় বিভিন্ন দেশের সাথে সুসম্পর্ক স্থাপন করাও একটি বড়ো সমস্যা ছিলো, তারপরে আসে বিভিন্ন দুর্গম স্থানে ডাকাতদের গুপ্ত হামলা যা ব্যাবসায়িক পণ্যের ক্ষতি ও জীবনের ভয় যাকিনা সকল ব্যাবসায়ীকে চিন্তায় রাখতো।

সেইজন্য ব্যাবসায়িক প্রতিদ্বন্দ্বিতা বাড়তে থাকা ইউরোপে তৎকালীন পর্তুগালের রাজার ইচ্ছা ছিলো নৌপথে নিরাপদ ও কমসময়ে ভারতে আসার সামুদ্রিক রাস্তা খোঁজার। কারণ ভারতীয় সিল্ক খাদি ও মশালার চাহিদা দিন দিন বাড়তে থাকার ইউরেপীয়ন বাজার দখল ও মুনাফা অর্জন।

ভাস্কো দা গামার বাবাও পর্তুগালের নামকরা ব্যাবসায়ী, আবিস্কারক জাহাজের কাপ্তান ছিলেন। ব্যাবসায়িক সাফল্য ও নতুন নতুন ব্যাবসায়িক স্থান আবিষ্কার করার জন্য তাকে নাইট উপাধি দেয়া হয়েছিলো। বাবার সাথে ভাস্কো দা গামা ও একজন সাহসী ও দক্ষ ক্যাপ্টেন ছিলেন।

পর্তুগালের রাজা ১৪৯৭ সালে ভাস্কো দা গামাকে দায়িত্ব দেয়াছিলেন সমুদ্র বা জলপথে আফ্রিকার কেপ অফ গুড হোপ থেকে পূর্ব অংশে ভারতে আসার পথ খোঁজার। এবং এই আসার পথ খোঁজার পথে বিভিন্ন ভূখণ্ডের সাথেও নতুন ব্যাবসায়ী সম্পর্ক স্থাপনের নির্দেশ ছিলো।

কেপ অফ গুড হোপ, বর্তমান cape town শহরের একটি সমুদ্রতট । পূর্বকাল থেকে বর্তমান কাল অব্দি এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ সামুদ্রিক কেন্দ্র। আর এই কেন্দ্রটি আবিষ্কার করেছিলেন আরেক বিখ্যাত পর্তুগিজ ক্যাপ্টেন বার্ডল দিও রিয়াদ ১৪৮৭ সালে।

ব্যাবসায়িক সম্পর্ক স্থাপন

সেই সময়ের রাজার অধিক দরবারি ছিলেন মুসলিম ধর্মবলম্বী আর পর্তুগিজ ছিলো খিস্টান তাই ভাস্কো দা গামা ব্যাবসায়িক সম্পর্ক স্থাপনে খুব বেশি সফল হয়নি।

পর্তুগাল ফিরে যাওয়া ও সম্মান প্রাপ্তি

তিনি august ১৪৯৮ পর্তুগালের উদ্দেশে পুনরায় যাত্রা করেন, পর্তুগালে ফিরে যাওয়ার পরে তাকে রাজকীয় সম্বধনা ও স্থানীয় সকলের সম্মান অর্জন করেন।

কারণ তারা জানেন ব্যাবসায়িক সম্পর্ক স্থাপন করা সময়ের ব্যাপার মাত্র, সমুদ্র পথে আসা যাওয়ার গুরুত্বপূর্ণ পথ আবিষ্কার করা ছিলো তাদের প্রাথমিক ভাবনা।

Vasco da Gama – শেষ পরিণতি

ভাস্কো দা গামা তৃতীয় বার যখন ভারতে আসেন তার কিছুদিন পরে তার শরীরে ম্যালেরিয়ার উপসর্গ দেখা যায় এবং ২৩ December ১৫২৪ সালে ভাস্কো দা গামার মিত্তু হয়।

আরো পড়ুন:

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here